বাঁশখালীতে গভীর রাতে নির্বিচারে গর্জন গাছ কর্তন

Total Views : 132
Zoom In Zoom Out Read Later Print

জসিম উদ্দিন,বাঁশখালী

চট্টগ্রাম বাঁশখালী'র পাহাড়ি জনপদ বর্তমানে বনদস্যুর দখলে, গভীর রাতে নির্বিচারে কর্তন হয় গর্জন গাছ সহ সরকারি সংরক্ষণকৃত নানান জাতের গাছ। এমনই এক চিত্র ধরা পড়েছে গণমাধ্যম কর্মীর ক্যামরায়।গতরাত ১০ টা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর আসে বাঁশখালী উপজেলাধীন বৈলছড়ি ইউপিস্থ জঙ্গল চেচুরিয়া খদুল্লার পাড়া সংলগ্ন বড় জঙ্গলের নাহাড়ার জিড়ি নামক স্থানে গর্জন গাছ কাটার। খবর পাওয়ার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে গিয়ে সব কিছুর টিক মত দেখা মিলে। সাথে সাথে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইদুজ্জামান চৌধুরীকে মুঠোফোনে কল দিলে তিনি বন বিভাগের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন। সংশ্লিষ্ট বিট কর্মকতা হুমায়ুন কবিরকে কল দিলে তিনি রাত ১ টায় ঘটনস্থলে এসে সারা রাত পাহারা দিয়ে সকালে ঔ গাছ গুলো জব্দ করে। এই ব্যাপরে রেঞ্জার আব্দু রাজ্জাক কে মুটোফোনে কল দিলে তিনি বলেন, আমি শহরে আসছি আমি আমার বিট কর্মকর্তা হুমায়ুন কে বলে দিচ্ছি অন দ্যা স্পটে গিয়ে গাছ গুলো জব্দ করার জন্য। 


এলাকাবাসীর ধারনা মতে ৭০ থেকে ৮০ টি বিভিন্ন সাউজের গর্জন গাছ কর্তন করা হয়। এ গাছ গুলো ২৫০ থেকে ৩০০ ঘনফুট হবে বলে ধারনা করেছে। তবে সংশ্লিষ্ট বন কর্মকর্তা এবং রেঞ্জার কোন অবস্থাতেই স্বীকার করতেছে না মোট কতটি গাছ কর্তন হয়েছে এবং কত ঘনফুট গাছ জব্দ হয়েছে। 


চেঁচুরিয়া বিট কর্মকতা হুমায়ুন কবির বলেন, সাংবাদিক জসীম উদ্দীন এর সহায়তায় ও সংবাদে আমার বিট থেকে এই যাবৎ কালের গাছ কর্তনের সর্বোচ্চ চালান ধরতে এবং রক্ষা করতে সক্ষম হয়েছি। এই গাছ গুলো জব্দ করে যারা জড়িত সকলের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলে জানা তিনি। 


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানায়, স্থানীয় ছাত্রলীগ নামধারী কিশোর গ্যাং রিদুয়ান ও গাছ নেপথ্যের মূল হোতা কুতুবউদ্দিন সহ গ্যাং তৈরী করে বাঁশখালী'র বিভিন্ন পাহাড়ি অঞ্চলে দস্যুতা করে আসতেছে।


অভিযুক্ত রিদওয়ানের সাথে কথা বললে তিনি ভিডিও না করার জন্য বাধা দে। পরে পাহাড়ে হাতির ভয় দেখায়। হাতি গুলো ও নাকি তার কথায় চলে। সে আরও বলে আমাদের বিট কর্মকর্তাকে টাকা দিয়ে এসব কিছু করতেছি আপনারা কোন কিছুই করতে পারবেন না। আপনারাও কিছু টাকা নিয়ে চলে যান আপনাদের ভাগ্য ভালো থাকতে।


এই ব্যাপরে রেঞ্জ কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক বলেন, আপনি ধরে নিতে পারেন এযাবৎ কালের সর্বোচ্চ চালান আপনি ধরা দিলেন, সেজন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আমি সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং সব গাছ জব্দ করেছি। যারা এই দস্যুতার সাথে জড়িত সকলের বিরুদ্ধে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করব। 


এ ব্যাপারে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইদুজ্জামান চৌধুরী বলেন,আপনি একটু বন বিভাগের সাথে যোগাযোগ করেন। আমি তাদের নাম্বার দিচ্ছি। সাথে আমি বন বিভাগকে বলতেছি তারা অবশ্যই এই ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে।

See More

Latest Photos