দক্ষিণ চট্টগ্রামে বালিকা ফুটবলার তৈরির নেপথ্য কারিগর ক্রীড়াবিদ এরশাদ

Total Views : 318
Zoom In Zoom Out Read Later Print

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

দক্ষিণ চট্টগ্রামে বালিকা ফুটবলার তৈরির নেপথ্য কারিগর ক্রীড়াবিদ এরশাদ

দক্ষিণ চট্টগ্রামে বালিকা ফুটবলার তৈরির নেপথ্য কারিগর ক্রীড়াবিদ মোহাম্মদ এরশাদ। দক্ষিণ চট্টগ্রামের ক্রীড়াঙ্গনের উন্নতিতে যার রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। প্রচারবিমুখ নিবেদিত প্রাণ এ ক্রীড়াবিদের যাদুমন্ত্রে উজ্জ্বীবিত হয়ে দক্ষিণ চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলার মেয়েরা ইতিমধ্যে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে খেলার স্বপ্ন দেখছে। যা শুধু চট্টগ্রাম নয়, সারা বাংলাদেশের জন্য ইতিবাচক সুসংবাদ।


একটু পেছনে ফিরে গেলে জানা যাবে, ক্রীড়াঙ্গনের পরিচিত মুখ মোহাম্মদ এরশাদ একজন পুরোদস্তুর ক্রিকেটার। খেলোয়াড়ি জীবনে চট্টগ্রাম জেলা ফার্স্ট ডিভিশন ক্রিকেট লীগ থেকে ইতি টানার পর নিরবে-নিভৃতে লেগেই আছেন মফস্বল পর্যায়ে ফুটবলের উন্নয়নসহ খেলাধুলার বিভিন্ন অঙ্গনের উন্নতিতে ।


বাঁশখালীর সন্তান হলেও ২০১৭ সালে পার্শ্ববর্তী আনোয়ারায় বেসরকারি সাহায্য সংস্থা মমতা’র উদ্যোগে উপজেলায় ক্রিকেট লীগসহ বিভিন্ন খেলাধুলার ইভেন্টে কাজ করতে গিয়ে ওই উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে পরিচয় হয় তার। ওই উপজেলার মেয়েরা বার বার অনুরোধ করলে তিনি ঢাকা আবাহনী লি. এর সাবেক গোলরক্ষক কোচ আলীর সাথে পরামর্শ করেন। পরে তাকে প্রধান কোচ মনোনীত করে দক্ষিণ চট্টগ্রামে সর্ব প্রথম আনোয়ারা মহিলা ফুটবল একাডেমি গঠন করেন।


আনোয়ারা উপজেলা পরিষদের পাশের মাঠে শুরু হয় এ কার্যক্রম। অনুশীলন কার্যক্রমের খবর শুনে ওই একাডেমিতে ভর্তি হতে থাকেন চট্টগ্রাম শহর, খাগড়াছড়ি, কক্সবাজার, সীতাকুণ্ডসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামের বাঁশখালী, পটিয়ার ফুটবলাররাও। ধাপে ধাপে নিজেদের গড়ে তুলেন পেশাদার ফুটবলারে। তবে অভিযোগ আছে, সংগঠনটি প্রতিষ্ঠার কিছু দিন যেতে না যেতেই এলাকার কিছু অসৎ মানুষ নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে শুরু করে ষড়যন্ত্র। চেষ্টা করে প্রতিষ্ঠানটি ধ্বংস করতে। তবে বারখাইন ইউনিয়নের সাবেক সদস্য আজিজুল হকের সহযোগিতায় ওয়াশিকা আয়শা খান এমপির মাধ্যমে ২০১৯ সালে প্রতিষ্ঠানটির পুনঃনামকরণ করা হয় এমপির মাতা নিলুফার কায়সার স্মৃতি মহিলা ফুটবল একাডেমি নামে। এই একাডেমির কার্যক্রম শুরু করা হয় তৈলারদ্বীপ স্কুলের মাঠে।


পরে একই বছর বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে আনোয়ারা উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার হয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে একাডেমির সকল ছাত্রীর সমন্বয়ে গঠিত টিম।


জানা যায়, চট্টগ্রাম জেলা বালিকা টিম গঠিত হয়েছে এই টিমেরই অধিকাংশ মেয়ে খেলোয়ার দিয়ে। এছাড়া বিকেএসপিতে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন দুইজন, দু’জন খেলেছেন সিলেট এফসি ফুটবল ক্লাবের হয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগ। এদিকে চলতি বছরেই এরশাদের গড়ে তোলা এই একাডেমির ছাত্রীদের সমন্বয়ে গঠন করা কোতোয়ালি থানা টিমও হয়েছে চ্যাম্পিয়ন।


কথা হয় ক্রীড়াবিদ মোহাম্মদ এরশাদের সঙ্গে। তিনি বলেন, আমি আনোয়ারা উপজেলায় কাজ করলেও বাঁশখালীর সন্তান হিসাবে বরাবরই ওই উপজেলার মেয়েদের সুসংগঠিত করে নিয়মিত প্রেক্টিস ও প্রশিক্ষনের আয়োজন করছি। যেন তাদের অভিজ্ঞতার উন্নয়ন করতে পারে। এর মাধ্যমে উদীয়মান খেলোয়ারদের মান আরও উন্নয়ন হবে এমনই আশা করা যায়।


২০১৮ এবং ১৯ সালে এরশাদেরই নিজ অর্থায়নে বাঁশখালীর ৬ জন মেয়েকে পরিবারের সম্মতিতে নিলুফার কায়সার ফুটবল একাডেমিতে প্রশিক্ষণের সুযোগ দেয়া হয়। এরশাদ জানান, এক সময় বাঁশখালী থেকে আনোয়ারায় আসা যাওয়া করতে সমস্যা দেখা দিলে, বাঁশখালী বালিকা ফুটবল একাডেমির শাখা গঠন করার কথা চিন্তা করি। পরে বাহারচড়া রত্নপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আলহাজ মুজিবুর রহমানের সহায়তা নিয়ে ওনার প্রতিষ্ঠানেরওনার প্রতিষ্ঠানের ১৫/১৬ জন সম্ভাবনাময় মেয়ে সংগ্রহ করি।


প্রশিক্ষনের অনুমতি পেয়ে রত্নপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে সপ্তাহের তিন দিন নিজের অর্থায়নে বালিকা ফুটবল টিমের প্রশিক্ষন দেয়া শুরু হয়। ভালোভাবে প্রশিক্ষন নিয়ে মেয়েরা খুব দ্রুত উন্নতি লাভ করলে চলতি বছর (২০২২ সাল) অনুষ্ঠিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে বাঁশখালী উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার হয়ে দারুন ক্রীড়ানৈপুন্য প্রদর্শন করে।


বাঁশখালীর মেয়েরা দক্ষিণ জোনের ফাইনালে উত্তীর্ণ হয়ে পটিয়া উপজেলার সাথে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে অবশেষে ৩-২ গোলে পরাজিত হয়ে রানার্স আপ হলেও প্রশংসায় ভাসতে থাকে বাঁশখালীর মেয়েরা। টিমের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করেন সেই মোহা. এরশাদ। উক্ত টুর্নামেন্টে বাঁশখালীর মেয়ে রুমি আকতার ভালো খেলার সুবাদে বাংলাদেশ জাতীয় অনুর্ধধ ১৫ টিমের ট্রায়ালে সুযোগ পায়।


অন্যদিকে আর দুইজন ফেলো বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রমীলা ফুটবল টিমের ট্রায়ালে সুযোগ পায়।


খেলা প্রেমীরা মনে করেন, মোহাম্মদ এরশাদ দক্ষিণ চট্টগ্রামে সর্ব প্রথম মহিলা ফুটবল একাডেমি সৃষ্টি করার পর থেকে শতভাগ প্রফেশন্যাল মুডে আনোয়ারা, বাঁশখালীসহ দক্ষিণ চট্টগ্রামে মেয়েরা প্রমিলা ফুটবলে যে স্কিল অর্জন করছে তাতে অচীরেই এ মেয়েরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রমিলা ফুটবলাঙ্গনে চমক সৃষ্ঠি করতে সক্ষম হবে। এর জন্য মোহা. এরশাদ দক্ষিণ চট্টগ্রামের সুশীল সমাজের ফুটবলপ্রেমী দর্শকসহ সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছেন।


মোহা. এরশাদ ১৯৯২ সাল থেকে ক্রীড়া জগতের সাথে জড়িত হয়। তিনি ঐতিহ্যবাহী মোহামেডান স্পোটিং ক্লাবসহ নাম করা অসংখ্য ক্রিকেট ক্লাবে ক্রিকেট লীগ খেলেছেন। ২০১১ সালে বাঁশখালীতে ক্রিকেট একাডেমি সৃষ্টি করে ওই জনপদের ছেলে মেয়েদের ক্রিকেট লীগ খেলিয়ে বাঁশখালীর পতাকা উড়িয়ে যাচ্ছেন এই পযন্ত।

See More

Latest Photos