চট্টগ্রামের ১৬ টি আসনে আ.লীগ থেকে মনোনয়ন পাচ্ছেন যারা

Total Views : 280
Zoom In Zoom Out Read Later Print

বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোট একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে ধরে নিয়েই পুরোদমে নির্বাচনী মাঠে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট। দশম সংসদের মত বিএনপিজোট নির্বাচন বর্জন করবে, নাকি অংশগ্রহণ করবে সেদিকে তীক্ষ্ম দৃষ্টি রয়েছে ক্ষমতাসীনদের। এরই মধ্যে তারা গত দুই সংসদ নির্বাচনের মত শুরু করেছে ভোটের হিসাবে জোটের রাজনীতি। এবারও ঐক্যবদ্ধ ভোটের রাজনীতির আভাস মিলেছে আওয়ামী লীগের শীর্ষপর্যায় থেকে। পাশাপাশি তিন স্তরের প্রার্থী তালিকাও তৈরি করেছে আওয়ামী লীগ।


বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোট একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে ধরে নিয়েই পুরোদমে নির্বাচনী মাঠে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট। দশম সংসদের মত বিএনপিজোট নির্বাচন বর্জন করবে, নাকি অংশগ্রহণ করবে সেদিকে তীক্ষ্ম দৃষ্টি রয়েছে ক্ষমতাসীনদের। এরই মধ্যে তারা গত দুই সংসদ নির্বাচনের মত শুরু করেছে ভোটের হিসাবে জোটের রাজনীতি। এবারও ঐক্যবদ্ধ ভোটের রাজনীতির আভাস মিলেছে আওয়ামী লীগের শীর্ষপর্যায় থেকে। পাশাপাশি তিন স্তরের প্রার্থী তালিকাও তৈরি করেছে আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির নির্ভরযোগ্য সূত্র ও দলটির কেন্দ্রীয় সংসদের ঘনিষ্ঠ সূত্রের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিএনপিজোট অংশ নিলে গত সংসদ নির্বাচনের বেশিরভাগ প্রার্থীই বহাল থাকবেন। আর বিএনপি নির্বাচন না করলে ভোটসঙ্গী জাতীয় পার্টির সঙ্গে অলিখিত সমঝোতার মাধ্যমে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে বিকল্প প্রার্থী-তালিকা তৈরি করেছে আওয়ামী লীগ। পাশাপাশি গতবারের মত মহাজোটগত নির্বাচন হলেও প্রাথমিকভাবে তিনশআসনেই নিজেদের প্রার্থী ঘোষণা করবে আওয়ামী লীগ।

পরে অবশ্য জোটের স্বার্থে সেখান থেকে নিজেদের প্রার্থীকে প্রত্যাহার করে নেবে দলটি অর্থাৎ এসব প্রার্থী হলেন আওয়ামী লীগের ডামি প্রার্থী। তবে মূল প্রার্থী তালিকায় চূড়ান্তভাবে তালিকাভুক্ত করা আছে মহাজোটগত নির্বাচনের প্রার্থী তালিকা আর বিএনপিবিহীন জাতীয় পার্টির সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারীদের দুটি তালিকা। তৃতীয় তালিকাটি আওয়ামী লীগের ডামি প্রার্থীর তালিকা। গত সংসদ নির্বাচনে মহাজোট গত নির্বাচনের কারণে বেশ কয়েকজন ডামি প্রার্থীকে সরে যেতে হয়েছিল। মূলত এই তিনটি প্রার্থী তালিকাকে সামনে নিয়েই নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ।

এবার প্রার্থী নির্ধারণে বেশ কিছু বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করেছে দলটির শীর্ষ নেতৃত্ব ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটি। প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রে প্রাধান্য পাবে বর্তমান সংসদ সদস্য, ভোটের রাজনীতিতে জনপ্রিয়তা, অতীত ভালোমন্দ, তৃণমূলের সঙ্গে সর্ম্পকের ধরন, নির্বাচনী খরচ জোগানের ক্ষমতা, তিনটি সরকারি গোয়েন্দা সংস্থার জরিপ ও দলের নিজস্ব উইংয়ের মাধ্যমে জরিপের পর সর্বোপরি দলের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে সু-সম্পর্কের বিষয়টি।

এদিকে, চট্টগ্রামের ১৬ আসনে বর্তমানে দুটিতে জাতীয় পার্টি, একটিতে জাসদ ও একটি তরিকত ফেডারেশনের এমপিরা সংসদে প্রতিনিধিত্ব করছেন। আর বাকী ১২টিতে প্রতিনিধিত্ব করছেন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যরা।

তবে এবার মনোনয়নের ক্ষেত্রে চট্টগ্রামভিত্তিক একটি শিল্পগ্রুপ অন্তত চারটি আসনে ভূমিকা রাখবে। ইতোমধ্যে ওই গ্রুপের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকার কারণে তিনটি আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান প্রার্থীরা অনেকটা নির্ভার। অন্যদিকে দক্ষিণ চট্টগ্রামের বাঁশখালী আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী পরিবর্তনের আভাস মিলেছে। নাটকীয় সিদ্ধান্ত না হলে বন্দর আসনেও বর্তমান এমপির প্রার্থিতা বহাল থাকবে। সব মিলিয়ে চট্টগ্রামের ১৬ আসনে এবার ১৫ আসনেই প্রার্থী বহাল থাকলেও বাঁশখালী আসনে নতুন মুখ আসতে পারে। এরপরও অন্যান্য আসনেও মনোনয়নের জন্য মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন প্রবীণ ও নবীন আওয়ামী লীগের নেতারা।

চট্টগ্রাম-১ (মিরসরাই) আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। এবারও তাঁর মনোনয়নের বিষয়টি অনেকটা নিশ্চিত। এরপরও বিকল্প তালিকায় নাম রয়েছে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন। আর নতুন মুখ হিসেবে সামাজিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে আলোচনায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সদস্য ও তরুণ শিল্পোদ্যাক্তা নিয়াজ মোর্শেদ এলিট।

চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনে এবারও নিশ্চিত ১৪ দলের অন্যতম নেতা বর্তমান সংসদ সদস্য তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান মাওলানা নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী। আর বিকল্প তালিকায় আছেন গতবারের প্রার্থিতা প্রত্যাহারকারী সাবেক এমপি প্রয়াত রফিকুল আনোয়ারের কন্যা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য খাদিজাতুল আনোয়ার সানি। আলোচনায় আছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও ২০০৮-এর আওয়ামী লীগ প্রার্থী এটিএম পেয়ারুল ইসলাম।

চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য দ্বীপবন্ধু সাবেক সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমানের সন্তান মাহফুজুর রহমান মিতা। এবারও তাঁর প্রার্থিতা অনেকটা নিশ্চিত।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য সাবেক মেয়র মনজুরুল আলমের ভাতিজা শিল্পপতি মো. দিদারুল আলম। নানা হিসাব-নিকাশ ও সরকারের শীর্ষপর্যায়ে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ এবং সীতাকুণ্ডের সাংসদ হিসেবে অনেকটা বিতর্কের উর্ধ্বে থাকতে পারায় এবারও দিদারুল আলমের হাতে উঠবে নৌকার টিকিট। তবে আলোচনায় আছেন নুরুল মোস্তফা কামাল চৌধুরী , প্রাক্তন সাংসদ আবুল কাশেম মাস্টারের বড় ছেলে সীতাকুণ্ড উপজেলা চেয়ারম্যান ও উত্তর জেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল্লাহ আল মামুন , মনোনয়ের আশায় কাজ করে যাচ্ছেন তরুণ ব্যবসায়ী সীমা গ্রুপের পরিচালক মোহাম্মদ পারভেজ উদ্দীন সান্টু ।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) জোটের ভোটসঙ্গী জাতীয় পার্টির কারণে এবারও এই আসনটি ছেড়ে দিতে হবে জাতীয় পার্টির শীর্ষ নেতা বর্তমান সংসদ সদস্য ও পরিবেশমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদের কাছে। বিকল্প প্রার্থীর তালিকায় আছেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম। আলোচনায় আছেন গতবারের প্রার্থিতা প্রত্যাহারকারী উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ইউনূস গণি চৌধুরী।

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে টানা তিন বার আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য ও রেলপথ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতি, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এবারো অপ্রতিদ্বন্দ্বী। তবে মনোনয়ন চেয়ে নিজেকে আলোচনায় রেখেছেন ছাত্রলীগের সাবেক সেক্রেটারি মাহফুজুল হায়দার রোটন।

চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া ও বোয়ালখালীর শ্রীপুর-খরণদ্বীপ ইউনিয়ন) আসনে টানা দুবারের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদের এবারো অপ্রতিদ্বন্দ্বী। তিনি মনোনয়ন পাচ্ছেন তা নিশ্চিত।

চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও) আসনেও গত দুই বারের সংসদ সদস্য জাসদের মইন উদ্দিন খান বাদলের এবারের প্রার্থিতা নিশ্চিত। জাতীয় রাজনীতি ও সংসদে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার কারণে তার উপরই আস্থা মহাজোট নেত্রীর। এরপরও বিকল্প প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন সিডিএ চেয়ারম্যান আব্দুচ ছালাম ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন আহমেদ। তবে গত দুবার আবদুচ ছালাম আওয়ামী লীগের প্রাথমিক মনোনয়ন পেলেও বাদলের কাছে প্রার্থিতা ছেড়ে দিয়েছিলেন কেন্দ্রের নির্দেশে।

নগরীর প্রেস্টিজিয়াস আসন খ্যাত চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী-বাকলিয়া) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম মেম্বার জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। জোটের হিসেবে ভোটসঙ্গী জাপার হেভিওয়েট প্রার্থী বাবলুর প্রার্থিতাও অনেকটা নিশ্চিত। তবে এ আসনে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে আছেন প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরীর সন্তান আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ২০০৮ এর এমপি এবং বর্তমান প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বি.এসসি ও সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালামও।

চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং-হালিশহর) এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য নগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও সাবেক গণশিক্ষামন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীন। নানান প্রার্থীর ভিড়ে ভোটের রাজনীতিতে এখনো অপ্রতিদ্বন্দ্বী আফছারুল। সেই হিসেবে তাঁর হাতেই থাকছে আগামী নির্বাচনে নৌকার টিকিট। তবে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে আছেন আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম এম এ আজিজের ছেলে সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার। আলোচনায় আছেন সাবেক মেয়র মনজুরুল আলমও।

চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আসনে গত দুই বারের সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আলোচিত-সমালোচিত ব্যবসায়ী নেতা আওয়ামী লীগের এম এ লতিফ। তবে নানা কারণে তাঁর মনোনয়ন-বঞ্চনার খবর প্রকাশ হলেও নানা সমীকরণে এবারও নৌকার টিকিট নিজের দখলে রাখতে পারেন এম এ লতিফ। তবে বিকল্প হিসেবে জোর আলোচনায় আছেন নগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি তৃণমূল থেকে উঠে আসা খোরশেদুল আলম সুজন। আলোচনায় আছেন চট্টগ্রাাম চেম্বারের শীর্ষ এক নেতাও।

চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) গত দুবারের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শামশুল হক চৌধুরী এবারও নিজের মনোনয়ন নিশ্চিত করেছেন। পটিয়ায় সরকারের হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন ও জনপ্রিয়তার ওপর ভর করে শামসুল হক চৌধুরী টানা তৃতীয়বারের মত পটিয়ায় নৌকার প্রার্থী হচ্ছেন। তবে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে আছেন এস আলম গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ লাভু।

চট্টগ্রাম-১৩ (আনোয়ারা-কর্ণফুলী) আসনের বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগের প্রয়াত প্রেসিডিয়াম সদস্য আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর সন্তান সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ। ভূমি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকারী জাবেদ গত দুবারের মত এবারও নৌকার টিকিটে নির্বাচন করবেন সেটা অনেকটা নিশ্চিত। তবে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে আছেন বর্তমান সংরক্ষিত আসনের এমপি আওয়ামী লীগের আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রয়াত আতাউর রহমান খান কায়সারের কন্যা ওয়াশেকা আয়েশা খান।

চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ) বর্তমান সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরীকে এবারও নৌকার টিকিট দিচ্ছেন দলের শীর্ষ নেতৃত্ব ভোটের রাজনীতি ও গত পাঁচ বছরে এলাকায় কোনো নেতিবাচক কর্মকা- না থাকার কারণে ব্যাপক জনপ্রিয়তা বাড়িয়েছেন নিজ কর্মগুণে প্রবীণ এ নেতা। সে কারণে তিনিই হচ্ছেন চন্দনাইশের নৌকার একক প্রার্থী।

চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) প্রথমবারের মত জামায়াতবিহীন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিটে নির্বাচন করে ফসল ঘরে তুলে নৌকায় চড়ে সংসদে যান প্রফেসর ড. আবু রেজা মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন নদভী। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমীন, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাঈনুদ্দীন হাসান চৌধুরী, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, বনফুল গ্রুপের কর্ণধার এম এ মোতালেবসহ অনেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করলেও কৌশলগত কারণে জামায়াতের ভোট-ব্যাংক হিসেবে পরিচিত এই আসনে আবারও নদভীকে নৌকার টিকিট দিতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব।

চট্টগ্রাম-১৬ (বাশঁখালী) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। কিন্তু নির্বাচিত হবার পর থেকে নানা বির্তকের জন্ম দেওয়ায় চূড়ান্তভাবে মনোনয়ন-তালিকা থেকে বাদ পড়তে যাচ্ছেন তিনি। এ আসন থেকে নতুন মুখ হিসেবে আসতে পারেন এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যান সাইফুল আলম মাসুদের ঘনিষ্ঠ আত্মীয় আব্দুল্লাহ কবির লিটন। বাঁশখালীর গ-ামারায় এস আলম গ্রুপের কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের সময় গ্রামবাসীর সঙ্গে পুলিশের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সময় এলাকায় ছিলেন না বর্তমান সাংসদ। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে দুপক্ষের সঙ্গে ফয়সালা করেছিলেন লিটন। এছাড়া গণভবনের ঘনিষ্ঠ এস আলম গ্রুপও চায় আব্দুল্লাহ কবির লিটনই হোক বাঁশখালীর নৌকার প্রার্থী। তবে ভোটসঙ্গী জাতীয় পার্টির মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী যদি জোটগত নির্বাচন করেন তাহলে সেখানে লিটনের কপাল পুড়তে পারে। অন্যদিকে এলাকায় সামাজিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে আলোচনায় আছেন শিল্পপতি মজিবুর রহমানও।

 

See More

Latest Photos