চট্টগ্রামের বাঁশখালী থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১৭৮০০ পিছ ইয়াবাসহ আটক ০২ মাদক ব্যবসায়ী..

Total Views : 113
Zoom In Zoom Out Read Later Print

জসিম উদ্দিন, বাঁশখালী-চট্টগ্রাম..

চট্টগ্রাম বাঁশখালী থানা পুলিশের বিশেষ অভিয়ানে সতের হাজার আটশত পিছ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দুইজনকে গতকাল ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ শনিবার সন্ধ্য ৭ টা ৩০ মিনিটের সময়

বাঁশখালী থানাধীন পুঁইছড়ি ইউপিস্হ বাঁশখালী পেকুয়া প্রধান সড়কের ফ্রুটখালী ব্রীজের দক্ষিণ পার্শ্বে পাকা রাস্তার উপর থেকে গ্রেফতার করা হয়।


গ্রেফতারকৃতরা হলেন, বান্দরবান জেলার লামা থানাধীন পাপিয়াখালী ২নং ওয়ার্ড আব্দুল্লাজিরী এলাকার মৃত গিয়াস উদ্দীনের স্ত্রী ওয়াছ খাতুন (৫০), থেকে ষোল হাজার আটশ পিচ ইয়াবাসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।


বাকি একজন কক্সবাজার জেলার উখিয়া থানাধীন কুতুপালং ৬ নং ক্যাম্পের রশিদ আহম্মদের পুত্র আবুল কালাম (৩০), থেকে এক হাজার পিচ ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয়।


এই বিশেষ অভিয়ানে অংশ নেন বাঁশখালী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল ইসলাম এর নেতৃত্বে  এসআই( নিঃ) মোঃ মাসুদ সঙ্গীয় ফোর্সসহ একদল চৌকস পুলিশ। উদ্ধার সংক্রান্তে পৃথক পৃথক মামলা রুজু পূর্বক আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রহিয়াছে।


মাদক সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আইনজীবীরা বলছেন, এই ভয়াল মাদক গুলো একদিনে নির্মুল করা কখনো সম্ভব না। যখন একজন মাদকচক্রকে হাতেনাতে ধরার পর যদি মাদকচক্রের পক্ষ যখন কোন আইনজীবী আদালত শুনানী না করে, তখন হয়ত বাকি সদস্য কিংবা নতুন করে কেউ এই মাদকের সাথে জড়িত হবে না। বিশেষ করে এই মাদকের সাথে জড়িত হচ্ছে তরুন যুবক ও নারী। 


ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বাঁশখালী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল ইসলাম বলেন, পুইছড়ি ফ্রুটখালী ব্রিজের উপর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিশেষ অভিয়ান পরিচালনা করে আজ সতের হাজার আটশ পিচ ইয়াবা সহ দুই মাদকচক্রের সদস্যকে আটক করা হয়। প্রতিনিয়ত অভিযানের অংশ হিসেবে মাঝে মাঝে বড় বড় চালান পাওয়া যায়। এই ভাবে আসলে মাদক নির্মুল করা যাচ্ছে না। তবে আমরা মাদকের বিরুদ্ধে সব সময় অভিয়ান পরিচালনা করে আসামীদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইন মোতাবেক মামলা করে আদালতে প্রেরণ করে করি।

See More

Latest Photos