সীতাকুণ্ডের সব্জি সংরক্ষণে কোল্ড ষ্টোরেজ স্থাপন সময়ের দাবী

Total Views : 417
Zoom In Zoom Out Read Later Print

মোহাম্মদ নুরুল কবির দুলাল ;

কৃষক বাঁচলে দেশ বাঁচবে,কৃষি প্রধান দেশে সীতাকুণ্ডের সব্জী স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে চট্টগ্রাম শহর,রাজধানী ঢাকার সাধারণ ও অসাধারণ মানুষের চাহিদা মিটাচ্ছে।কিন্তু সীতাকুণ্ডবাসীর জন্য দূর্ভাগ্য এখানে বছরে কোটি কোটি টাকার সব্জি নষ্ট হয় প্রাকৃতিক দূর্যোগ ও সড়কে সমস্যার কারণে। গত কয়েকদিনে       সীতাকুণ্ডে টমেটো বিক্রি হচ্ছে কেজি ২-৩৳ দরে, অথচ নগরীর কর্ণফুলী মার্কেট কাঁচাবাজারে দেখা গেল ২০৳ কেজি।চট্টগ্রাম শহরে  প্রায় সব বাজারেই ২০৳ র নিচে নামেনি টমেটোর কেজি।কোল্ড স্টোরেজ' না থাকায় সীতাকুণ্ডের প্রান্তিক চাষীরা প্রচুর ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এটা অতীব গুরুত্বপূর্ণ। অনেক কৃষক ন্যায্য মূল্য না পেয়ে রাস্তায় টমেটো ফেলে দিচ্ছে এমন ঘটনাও ঘটছে বিভিন্ন জায়গায়। 'কোল্ড স্টোরেজ' না থাকায় এখন টমেটোর ক্ষেত্রে যা হচ্ছে কিছুদিন পর বাঙ্গি,তরমুজের ক্ষেত্রেও তা হবে। বাঙ্গি,তরমুজের জন্যে সীতাকুন্ড বিখ্যাত। এছাড়া টমেটো,শিমসহ সীতাকুণ্ডের উল্লেখযোগ্য অনেকগুলো সবজিই সমগ্র বাংলাদেশের বাজারগুলোতেই যায়। দেশের সবজির ঘাটতি পূরণে সীতাকুণ্ডের প্রান্তিক চাষীদের অবদান অনস্বীকার্য। দেশের এই দুর্যোগময় মুহুর্তেও সবকিছুর দাম বাড়লেও সব্জির দাম মানুষের নাগালের মধ্যে আছে এতেও সীতাকুণ্ডের কৃষকদের সবচেয়ে বেশী ভূমিকা। সবকিছু বিবেচনা করে সীতাকুণ্ডের কৃষকদের বাঁচাতে প্রশাসনের কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করা অতীব জরুরী হয়ে পড়েছে।একাধিক কৃষক বলেছেন,এমপি,মন্ত্রী আসে যায়,কিন্তু সীতাকুণ্ডের কৃষকের ভাগ্য পরিবর্তন হয় না।সরকারীভাবে অনতিবিলম্বে সব্জি সংরক্ষণের জন্য কোল্ড ষ্টোরেজ স্থাপন করার জোর দাবী জানিয়েছেন।             

সীতাকুণ্ডের জমি খুবই উর্বর ও ফসলের উৎপাদনের জন্য উপযোগী।বছরে কয়েক কোটি টাকার ফসল নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক বিপর্যয় বা সড়কে পরিবহন সমস্যা হতে ফসল বাঁচাতে কোল্ড ষ্টোরেজ জরুরি। সীতাকুণ্ড উপজেলা কৃষি অফিসারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফসল হলো ফসলের বাম্পার ফলন। কিন্তু ফসলের কোল্ড ষ্টোরেজ ব্যবস্থা না থাকায় প্রতিদিন সিজনাল ফসল নষ্ট হচ্ছে। 

বিডি ক্রাইম নিউজের প্রতিবেদনে উঠে আসে সীতাকুণ্ডে যদি ফসল সংরক্ষণ করার জন্য কোল্ড ষ্টোরেজ ব্যবস্থা করা হয় কোটি কোটি টাকার ফসল পচন হতে বাঁচবে।যার ফলে কৃষক সর্বোপরি দেশের সম্পদ বাড়বে।সীতাকুণ্ডের কৃষকেরা স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব দিদারুল আলম, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্জ্ব এসএম আল মামুন,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা কৃষি অফিসারেরসহ সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন। সীতাকুণ্ডের কৃষক বাঁচান,দেশের খাদ্য সামগ্রী সংরক্ষণ করে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি আনতে সহযোগিতা করুন।                                                     

See More

Latest Photos